বরিশালে পাচার কালে১০০০ বস্তা সরকারি চাল জব্দ, আটক হয়নি কালোবাজারির কোন সদস্য

মে ০৫ ২০২১, ১০:০৮

Spread the love

বরিশালে পাচারকালে ৫০ মেট্রিক টন সরকারি চাল জব্দ করেছে বাবুগঞ্জ থানা পুলিশ। এ সময় ট্রলারচালককে আটক করা হয়। তবে রহস্যজনকভাবে পাচারকারী চক্রের তিনজন পালিয়ে যায়।

শনিবার এ ঘটনা ঘটলেও এখন পর্যন্ত চাল চুরি অথবা অবৈধভাবে বহনের ঘটনার সাথে জড়িত কোন কালোবাজারির সদস্যকে গ্রেফতার করতে পারেনি কতৃপক্ষ, শুধুমাত্র ড্রাইভার ছাড়া। মেহেন্দিগঞ্জের জয়নাল নামের একজন চোরাকারবারির নাম প্রকাশ হলেও দৃশ্যমান কোন ব্যবস্থা নেয়ার খবর জানা যায়নি।

এদিকে মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা শেখ মুনির ইতিপূর্বে তার চাকুরীজীবনে দুর্নীতির অভিযুক্ত ছিলেন বলে জানা গেছে সংশ্লিষ্ট সূত্র থেকে। এবারও প্রধান অভিযুক্ত তিনিই, এনটাই দাবি মেহেন্দিগঞ্জের মানুষের। তাদের দাবি চাল যদি মেহেন্দিগঞ্জের হয়,তাহলে অবশ্যই এই বিপুল পরিমাণ চালের চুরির সাথে তিনিই জড়িত। কারন হিসেবে তারা দেখছেন যে, ‘ এত পরিমাণ চাল তো ছিচকে চোর চুরি করে নিয়ে আসতে পারেনি ‘

ঘটনার দিন দুপুরে বাবুগঞ্জ উপজেলার আড়িয়াল খাঁ নদীর রফিয়াদি এলাকা থেকে ওই চাল আটক করা হয়।

পুলিশ জানায়, স্থানীয়রা ট্রলারটি আটক করে পুলিশকে খবর দেয়। এ সময় ট্রলারচালক আব্দুস সাত্তারকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়। সরকারি চাল পাচারের নেপথ্যে কারা তা নিশ্চিত হওয়ার চেষ্টা চলছে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো.আমীনুল ইসলাম, সহকারী (ভূমি) কমশিনার মিজানুর রহমান।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম বলেন, চালগুলো কোথাও বিক্রি করা হয়েছিল। কে খাদ্য গুদামের চাল বিক্রি করেছে আর কারা তা কিনেছে সেটা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এক হাজার বস্তা চাল জব্দ করা হয়েছে। তবে শুনেছি আরও দুইটি ট্রলার ভর্তি চাল রয়েছিল।

ট্রলারচালক আব্দুস সাত্তারের স্বীকারোক্তির বরাত দিয়ে পুলিশ জানান, ‘ মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা খাদ্য গুদাম থেকে ওই চাল তার ট্রলারে তুলে দেওয়া হয়েছে মুলাদীতে পৌঁছে দেওয়ার জন্য। মেহেন্দিঞ্জের পাতারহাট বন্দরের জয়নাল মাঝি মেহেন্দিগঞ্জ খাদ্য গুদামের জাহাজ থেকে এক হাজার বস্তা চাল তার ট্রলারে তুলে দিয়েছে। ‘ স্থানীয় মানুষ ট্রলার আটক করার পরে চাল মালিকরা পালিয়ে যান। জব্দ করা চালের বস্তায় সরকারি খাদ্যগুদামের লোগো ও সিল দেওয়া আছে।

এ বিষয়ে বরিশাল জেলা খাদ্য কর্মকর্তা জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক তাইজুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন ‘ শেখ মুনির মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আমার কাছে লিখিত অভিযোগ করে নিরাপত্তা প্রহরি মো.মামুন। অভিযোগে চাল চুরির ঘটনার বিষয়ে হুমকি বিষয়ক ঘটনার উল্লেখ রয়েছে। তদন্ত কমিটি গঠন হয়েছে, রিপোর্টে জানা যাবে বাকি বিষয়। ‘

অভিযুক্ত মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা শেখ মুনিরকে জানতে চাইলে তিনি কোন মন্তব্য করেননি।